মুসলিম স্কুল ছাত্রীকে ধর্ষণ করতে না পেরে জিব টেনে ছিঁড়ে পেলল হিন্দু সঞ্জীব মিস্ত্রী 

মুসলিম স্কুল ছাত্রীকে ধর্ষণ করতে না পেরে জিব টেনে ছিঁড়ে পেলল হিন্দু সঞ্জীব মিস্ত্রী 

 

​কয়েকদিন ধরে মিডিয়া আর সরকার খুব মেতে আছে পূজা দাস নামে এক হিন্দু মেয়েকে নিয়ে। মেয়েটিকে নাকি ধর্ষণ করেছে সাইফুল নামক এক লম্পট । পূজা দাসকে হাসপাতালে গিয়ে দেখে এসে শেখ হাসিনার এপিএস শাকিল স্টাটাস দিয়েছে-

 

 

‘‘পূজা মা, আমি তোর কাছেই আসবো যদি কোনো কন্যার পিতা হয়ে থাকি…।” ঢাকা মেডিকেল কর্তৃপক্ষ পূজার চিকিৎসার সব দায়িত্ব নিয়েছে বলে জানান শাকিল। ‘‘…আশাবাদী, সুবল দাস সুস্থ মেয়েকে নিয়ে কয়েকদিন পর বাড়ি ফিরতে পারবে। বাকিটা সৃষ্টিকর্তার ইচ্ছা,”

 

ইতিমধ্যে উপরের নির্দেশে পূজার জন্য ৯ সদস্যের উচ্চ পর্যায়ের মেডিকেল বোর্ড গঠন হয়েছে। উন্নত চিকিৎসা ও প্লাস্টিক সার্জারী করতে সব রকম ব্যবস্থাই করা হচ্ছে।

সরকারিভাবে ঘোষণা দেয়া হয়েছে পূজার সমস্ত খরচ বহন করা হবে। এরপরও হিন্দুনের ন্যাকা কান্না শুনে অনেক মুসলমানও পূজা দাসের নামে বানানো একাউন্টে টাকা পাঠিয়েছে। একই সাথে গ্রেফতার করা হয়েছে লম্পট সাইফুলকে, নেয়া হয়েছে ৭ দিনের রিমান্ডে।

 

যাই হোক, এবার পিরোজপুরের মঠবাড়িয়ায় এক মুসলিম কিশোরীকে ধর্ষণের চেষ্টা করেছে এক হিন্দু লম্পট। সাপলেজা মডেল স্কুলের ৭ম ছাত্রী ছাত্রী আসমাকে (১৩) স্কুলে যাওয়ার পথে বাগানের আড়ালে নিয়ে ধর্ষণের চেষ্টা করে সঞ্জিব মিস্ত্রি নামক এক হিন্দু লম্পট। এ সময় আসমা চিৎকার করার চেষ্টা করলে তার জীহ্বা টেনে ছিড়ে ফেলে হিন্দু লম্পট সঞ্জিব মিস্ত্রি। এতে জিহ্বা ছিড়ে রক্তাক্ত হয় আসমা। আসমার আত্মচিৎকারে ছুটে আসে এলাকাবাসী। আসমাকে উদ্ধার করে হাসপাতালে পাঠানো হয় এবং সঞ্জিব মিস্ত্রিকে গ্রেফতার করে পুলিশ।

 

মারাত্মক আহত আসমার এখন উন্নত চিকিৎসার প্রয়োজন। কিন্তু আসমার বাবা ফুলমিয়া খুবই দরিদ্র । আসমার উন্নত চিকিৎসার খরচ বহনের সামর্থ্য ফুলমিয়ার নেই। এ অবস্থায় আসমার চিকিৎসা খরচ যোগাতে প্রধানমন্ত্রীর এপিএস শাকিল বা অন্যান্য মুসলিম মহল এগিয়ে আসবে কি ?? আর লম্পট সঞ্জিব মিস্ত্রি হিন্দু ধর্মাবলম্বী থেকে আগত হওয়ায় তার কোন বিচার হবে কি ?? কারণ পাবলিক লম্পট সঞ্জিবকে ধরে দিলেও হিন্দু হওয়ায় পুলিশ এখন পর্যন্ত মামলাই নেয়নি সঞ্জিবের বিরুদ্ধে।

 

আসমার জন্য যদি কোন ব্যবস্থা না নেয়া হয়, তবে ধরে নিতে হবে-

 

পূজারাই এখন বাংলাদেশের নাগরিক, আর আসমারা নদীদের পানিতে ভেসে আসা খরখুটো। পূজার জন্য প্রধানমন্ত্রী কাদবে, অপরদিকে আসমারা চিকিৎসার অভাবে কাতরাবে। সাইফুলদের বিচার হবে, কিন্তু সঞ্জিব মিস্ত্রি হিন্দু হওয়ায় বিচারবিভাগ নাগালাই পাবে না। দেখা যাক তবে কি হয়।

 

খবরের সূত্র:

১) যুগান্তর- http://bit.ly/2flseoS

২) কালেরকণ্ঠ-http://bit.ly/2eh6MgJ

৩) আমাদের সময়- http://bit.ly/2eT23mT

৪) ইনকিলাব-http://bit.ly/2e2Udbj


Facebooktwittergoogle_plusredditpinterestlinkedinmail

Skip to toolbar