অভিমানে অবসরে যাচ্ছেন মাশরাফি!

অভিমানে অবসরে যাচ্ছেন মাশরাফি!

 

মাঝখানে আড়াই বছর। সময়টা নেহায়েতই কম নয়। এতটা লম্বা বিরতির পর বিদেশের মাটিতে হোয়াইট ওয়াশের জ্বালাটাও নিশ্চয়ই সহনীয়তার মাত্রা ছাড়িয়ে গেছে। যদি তাই হয়, তবে সেটা বেশি হয়েছে মাশরাফির ক্ষেত্রে। নতুন তারকাখচিত দলের এমন ভরাডুবি কি করে মেনে নেবেন ম্যাশ।

 

মানতে পারার কথাও নয়। তবে কি এই মানতে না পারা নিয়ে সরে দাঁড়াবেন মাশরাফি! তবে কি অভিমানে অবসরে যাচ্ছেন মাশরাফি! না, এমন প্রশ্ন মাথায় আনাও অনুচিত। বহু ভাঙাগড়ার সাক্ষী এই নড়াইল এক্সপ্রেস ব্যক্তি জীবনেও কম লড়াই করেননি। একাধিকবার পায়ে অস্ত্রোপচার করেও দলের জন্য সবটুকুই উজার করে দিতে চান। দায়িত্ব ও নেতৃত্বেও নিজের সক্ষমতা প্রমাণ করেছেন বারবারই।

 

তাহলে এখন করবেনটা কি মাশরাফি। কি করা উচিত তার। এমন প্রশ্ন হয়তো স্বয়ং মাশরাফির মাথায়ও ঘুরছে। কিন্তু সল্যুশনটা অত সহজে আসছে না। না আসারই কথা। দেশের মাটিতে টানা ওয়ানডে সিরিজ জয়ের পর ক্রিকেট দুনিয়ায় একটাই রব উঠেছিল- বাংলাদেশ বিদেশের মাটিতে ভালো করে দেখাক। বাইরে ভালো করলেই যে বাংলাদেশের উন্নতির মাহাত্ম্যতা উজ্জ্বল হতো এ যুক্তিতে কেউ আপত্তি করবেন না।

 

নিউজিল্যান্ড সফরে যাওয়ার আগেও মাশরাফি সাংবাদিকদের বলেছিলেন, ‘ম্যাচ জয়ের চেয়ে নিউজিল্যান্ডের মাটিতে মনোবল ধরে রাখাটাই হবে ক্রিকেটারদের জন্য বড় চ্যালেঞ্জ।’ সেই চ্যালেঞ্জটাই কি নিতে ব্যর্থ হলো বাংলাদেশ? অনেকাংশে তা-ই। তবে অবসর তো দূরের কথা দলের এমন দুঃসময়ে মাশরাফিকেই যে কোচ চন্ডিকা হাথুরুসিংহের বেশি প্রয়োজন সেটা হাথুরুও হাড়ে হাড়ে টের পাচ্ছেন।

 

প্রসঙ্গত, তিন ম্যাচ ওয়ানডে সিরিজে স্বাগতিক নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে ধবল ধোলাইয়ের শিকার হয়েছে লাল-সবুজের ছেলেরা। এখন সামনে অপেক্ষা- চার-ছক্কার টি-টোয়েন্টিতে সেই জ্বালা কতটা লাঘব করতে পারে হাথুরুর শিষ্যরা।

 

ব্রেকিংনিউজ


Facebooktwittergoogle_plusredditpinterestlinkedinmail

Skip to toolbar