ওপেনিং জুটিতেই ভুগছে বাংলাদেশ

0
179

টাইগারদের ছুঁড়ে দেওয়া ২৭৯ রানের টার্গেটে ব্যাট করছে স্বাগতিক দক্ষিণ আফ্রিকা। শুরু থেকেই প্রোটিয়া দুই ওপেনার দারুণ শুরু এনে দিয়েছেন দলকে। ওপেনিংয়ে নামেন কুইন্টন ডি কক এবং হাশিম আমলা।

এ রিপোর্ট লেখা অবধি ১৭ ওভার শেষে দক্ষিণ আফ্রিকা বিনা উইকেটে তুলেছে ১০৪ রান। ডি কক ৫৬ এবং আমলা ৪৭ রানে অপরাজিত।

দক্ষিণ আফ্রিকায় বাংলাদেশের আগের সফরগুলো সুখকর হয়নি। স্বাগতিক দেশের বিপক্ষে তাদের মাটিতে কখনোই ৫০ ওভারের ম্যাচে জেতা হয়নি লাল-সবুজদের। তবে আগের বাংলাদেশ এখন আর তেমনটি নেই। ওয়ানডে ক্যারিয়ারের পঞ্চম সেঞ্চুরি হাঁকিয়েছেন মুশফিকুর রহিম। বাংলাদেশ নির্ধারিত ৫০ ওভারে ৭ উইকেট হারিয়ে তোলে ২৭৮ রান। দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে অবশ্য এটিই বাংলাদেশের সর্বোচ্চ স্কোর। এর আগে ২০০৭ বিশ্বকাপের সুপার এইটে গায়ানায় তুলেছিল ৮ উইকেটে ২৫১।

দক্ষিণ আফ্রিকা সফরে শুরুটা ভালো হয়নি বাংলাদেশের। দুই ম্যাচের টেস্ট সিরিজে বাজে হার। তবে নিজেদের প্রিয় ফরম্যাট ওয়ানডেতে জয় দিয়েই শুরু করতে চায় টাইগাররা। তিন ম্যাচ ওয়ানডে সিরিজের প্রথমটিতে কিম্বার্লির ডায়মন্ড ওভালে বাংলাদেশ সময় খেলাটি শুরু হয় দুপুর দুইটায়।

প্রোটিয়াদের বিপক্ষে প্রথম ওডিআইতে টসে জিতে ব্যাটিংয়ের সিদ্ধান্ত নেন বাংলাদেশ অধিনায়ক মাশরাফি বিন মর্তুজা। শুরু থেকেই সতর্ক ব্যাট করছিলেন বাংলাদেশের দুই ওপেনার লিটন দাস এবং ইমরুল কায়েস। প্রায় দুই বছর পর ওয়ানডেতে খেলতে নামা লিটন প্রথমবার ইমরুল কায়েসের সঙ্গে জুটি বাঁধেন। ইনিংসের নবম ওভারের পঞ্চম বলে কেগিসো রাবাদার বলে ডু প্লেসিসের তালুবন্দি হন লিটন। ২৯ বলে চারটি বাউন্ডারিতে লিটন করেন ২১ রান। দলীয় ৪৩ রানের মাথায় প্রথম উইকেট হারায় বাংলাদেশ। দলীয় ৬৭ রানের মাথায় বিদায় নেন ইমরুল কায়েস। ডোয়াইন প্রিটোরিয়াসের বলে ইনিংসের ১৪তম ওভারে ডি ককের তালুবন্দি হন কায়েস। বিদায়ের আগে তার ব্যাট থেকে আসে ৪৩ বলে ৩১ রান। তার ইনিংসে ছিল চারটি চার আর একটি ছক্কা।

ইনিংসের ২০তম ওভারে বাংলাদেশের দ্বিতীয় ব্যাটসম্যান হিসেবে সাকিব ৫ হাজার ওয়ানডে রান স্পর্শ করেন। তার আগে তামিম ইকবাল এই কীর্তি স্পর্শ করেছিলেন। পাশাপাশি সনাথ জয়সুরিয়া, জ্যাক ক্যালিস, শহীদ আফ্রিদি

banglanews24

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here